টিয়া, কাকাতুয়া কিংবা ময়না নয়, হুবহু মানুষের ভাষা নকল করে তাক লাগাল কাক, ভাইরাল ভিডিও

crow

সোশ্যাল মিডিয়া জনপ্রিয়তা পাওয়ার সাথে সাথে যেমন সামাজিক কটূক্তির মত ঘটনা বেড়ে চলেছে ঠিক তেমনই বেড়েছে শহরের আনাচে-কানাচে থাকা প্রতিভার বিকাশের সুযোগ। মাঝেমাঝেই কিছু ঘটনা এতটাই জনপ্রিয়তা পায় যে কোন শিশু হোক বা কোনো ব্যক্তি নিজের জীবনে প্রতিষ্ঠা পায়। সম্প্রতি সোশ্যাল-মিডিয়ায়-ভাইরাল হতে দেখা গেল টকিং ক্র কে। হ্যাঁ, ঠিকই ভাবছেন কথা বলা এক কাকের কথা।
সচরাচর হামেশাই দেখা যায় টিয়া, কাকাতুয়া কিংবা ময়নার মত পাখিরা মানুষের গলার স্বর হুবহু নকল করতে পারে এমনকি তাদের কথা বলাও শেখানো যায়। তবে কখনো কেউ কাককে দেখেনি কথা বলতে। এমনই আশ্চর্য ঘটনা ঘটতে দেখা গেল বাংলাদেশের রাজশাহী জেলায়।

সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় যে ভিডিওটি ভাইরাল হয়েছে তাতে দেখা যাচ্ছে একটি কাক তার মালিকের হাতের ওপর বসে অনর্গল বাংলা ভাষায় কথা বলে যাচ্ছে। সেই যুবতী রীতিমতো নিজের পোশাকটিকে বাংলা ভাষায় কথা বলতে শিখে ফেলেছেন। একদিন রাতে ভীষণ ঝড়ে কাকের ছানাটি তাদের বাড়িতে উড়ে এসে পড়েছিল। সেই পক্ষীশাবককে পরম যত্নে যুবতী নিজের কাছে বড় করেন। ভালবেসে নাম রেখেছেন কামিনী। কাকটিকে নিজের হাতে বড় করেছেন ঠিকই তার সাথে সাথে তিনি তাকে শিখিয়েছেন অনর্গল বাংলা ভাষায় কথা বলা।

ইউটিউবে যে ভিডিওটি ভাইরাল হয়েছে তাতে দেখা যাচ্ছে যুবতীর ঘাড়ে, পিঠে, মাথায় উঠে কাকটি নানা রকম ভঙ্গিতে বোঝানোর চেষ্টা করছে সে যুবতীকে কতটা ভালোবাসে। যুবতী জানিয়েছে তাকে কখনো শিকল দিয়ে বেঁধে রাখার প্রয়োজন হয় না। কাকটি এখন তাদের পরিবারের অন্যতম সদস্য হয়ে উঠেছে। ছোট থেকেই তাঁর কাছে থাকতে থাকতেই শিখে ফেলেছে বাংলা ভাষা।

এই আশ্চর্য কাকের সন্ধান পেয়ে রীতিমতো আশরাফ আলীর বাড়িতে রিপোর্টারদের ভিড় লেগে যায়। কাকটিকে বাংলা ভাষায় কথা বলতে দেখে একজন ব্যক্তি পুরো মুহূর্তটি ক্যামেরায় ভিডিও হিসেবে বন্দী করেন। সেটি পরবর্তী এক সময়ে তিনি পোস্ট করে দেন সামাজিক মাধ্যমে। নানারকম গৃহপোষ্য পাখিদের নিজস্ব ভাষায় কথা বলার ট্রেনিং দেয়া হলেও আগে কখনোই কারো চোখে পড়েনি এক কাককে এরকম ট্রেনিং দেয়ার ঘটনা।