ভাইরাল ভিডিও

চিড়িয়াখানার কর্মীকে কামড়ে দিল ১৬ ফুটের বিশাল কুমির, ভিডিয়ো দেখে শিউরে উঠলো নেটবাসীরা

সোশ্যাল মিডিয়ার পাতায় অস্বাভাবিক অনেক ঘটনায় উঠে আসে। ঠিক সেরকম দক্ষিণ আফ্রিকার একটি বন্যপ্রাণী পার্কে ঘটে যাওয়া গা শিউরে ওঠা ঘটনায় উত্তপ্ত নেটপাড়া। বন্যপ্রাণী পার্কে হতে থাকা একটি লাইভ শো-এর মাঝে, হঠাৎই সেখানকার এক কর্মচারী কে, একটি কুমির আক্রমণ করে। ঘটনাটি ১০ই সেপ্টেম্বরে; কোয়াজুলু নাটাল প্রদেশের ক্রোকোডাইল ক্রিক খামারের ঘটনা।তথ্য অনুসারে জানা যায়, চিড়িয়াখানার রক্ষক বিভিন্ন শো দেখায় পর্যটকদের সামনে কুমির নিয়ে এবং সেখানেই একদল পর্যটকের সামনে সেদিন তিনি একটি কুমিরের পিঠের উপর বসে ছিলেন। এর পরেই ঘটে ভয়ংকর সেই ঘটনা।

শন লে ক্লাস নামের ব্যক্তিটি প্রায় ৩০ বছর ধরে হ্যানিবালের যত্ন নিচ্ছেন, পর্যটকদের শো দেখাবার জন্য। যখন কুমির কে নিয়ে শন খেলা দেখায় তখন তাকে বলতে শোনা যায়, “এটি দক্ষিণ আফ্রিকার একমাত্র কুমির, যার পিঠে বসে কথা বলতে পারি নির্ভয়ে”। হ্যানিবালের ৬৫ সেন্টিমিটার মাথার ৬০ সেন্টিমিটার কামড়ের জায়গাটি দর্শকদের দেখিয়েছিল শন আর ঠিক তখনই ঘটেছে চরম বিপদ! কুমির তার বিরাট মাথাটি ঘুরিয়ে শনের উপর আক্রমণ করে। তবে এটিই প্রথম নয়, এর আগেও শনকে আরো একটি কুমির কামড়ে দিয়েছিল । যার কারণে তার পায়ে চোট আছে। সেই কামড়ানোর কারনে ১১ মাসেরও অধিক সময়ে সে চলাফেরা করতে পারতো না।

তবে এই প্রথমবার হ্যানিবাল একজন হ্যান্ডলারকে কামড়ে দিয়েছে। এটি ঘটার কারণ এক মহিলা হ্যানিবালের সামনে হঠাৎ চলে আসে আর তাতেই সেই কুমির কিছুটা হকচকিয়ে গেছিল। শনও তখন কুমিরের পিঠে বসে ছিল, সে মহিলাটিকে দেখতে পায়নি। তাকে দূরে চলে যেতে বলার আগেই, চরম দুর্ঘটনাটি ঘটে যায়। তবে জানা গেছে হ্যানিবাল কোনরকম কামড় দেয়নি, তাই এই যাত্রায় বেঁচে গেছে শন।

Related Articles