অফবিট

তাড়িয়ে দিয়েছিল পরিবার, প্রতারণা করেছিল প্রেমিক! শেষমেশ IPS অফিসার হয়ে চমক দিলেন মহিলা

সকলের জীবনেই ভালো-খারাপ দুই দিকই বর্তমান। জীবনের ওঠা পরার মধ্য দিয়েও অনেকেই তাদের লক্ষ্যে পৌঁছানোর স্বপ্ন দেখে। আর সেই স্বপ্ন সত্যি করতে জীবনের অনেক কঠিন পরিস্থিতির মোকাবিলা করে তারা। ঠিক সেরকমই এক ঘটনা আইপিএস অফিসারের (IPS officer) অ্যানি সিবার, তার জীবনের লড়াইয়ের গল্প সিনেমার থেকেও কিছু কম নয়।


বর্তমানে সে আইপিএস অফিসার হলেও, তার জীবনে এক সময় অনেক প্রতিকূলতা এসেছে। কলেজ জীবনেই প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে ছিলেন তিনি, এরপর প্রেমিকের সাথে লিভ-ইন করার সময় প্রেগন্যান্ট হয়ে যান। যথারীতি তার পরিবার মেয়ের এরূপ এক কীর্তি মেনে নিতে পারেনি; সেই সময় তারা অ্যানিকে বাড়ি থেকে বের করে দিয়েছিল। অপরদিকে যে প্রেমিকের জন্য ঘর ছাড়া হয়েছে সে, সেই প্রেমিকও অ্যানির দায়িত্ব নিতে চায়নি। এরপরে শুরু হয় তার জীবন যুদ্ধের লড়াই। ভাড়া বাড়িতে থেকে মানুষ করতে থাকেন তার ছেলেকে। বীমার এজেন্ট হিসেবে কাজ করে রোজগার করতেন সেই সময়, এর পাশাপাশি লেবু ও আইসক্রিম বিক্রি করতে হতো তাকে পেটের দায়ে।

এইভাবে তার ছেলের পড়াশোনা ও মা-ছেলের সংসার কোন রকমে কেটে গেলেও, বড় কিছু করার উদ্দেশ্যে ২০১৪ সালের তিরুবন্তপুরামে একটি প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষার কোচিংয়ে ভর্তি হয়েছিলেন তিনি। দীর্ঘ পড়াশোনার পর ২০১৬ সালে পুলিশের পরীক্ষায় বসে, তাতে পাস করেছিল অ্যানি। ২০১৯ সালে আবারো এসআই পদের পরীক্ষায় সে সাফল্য লাভ করে। এইভাবেই গত ২৫শে জুন কেরলের তিরুবন্তপুরামের ভারকালা জেলার সাব-ইন্সপেক্টর পদে নিযুক্ত হয়েছেন অ্যানি। জীবন যুদ্ধে জয়লাভ করা এবং নারীদের ক্ষমতায়নে এক দৃষ্টান্ত উদাহরণ হিসেবে, ৩১ বছরের অ্যানির এই কাহিনী সত্যিই অনবদ্য।

Related Articles