অফবিট

ছেলেকে ইঞ্জিনিয়ারিং পড়াতে জমি-বাড়ি বন্ধক রেখেছিলেন বাবা, ৩০ বছর বয়সে IAS অফিসার হয়ে ইতিহাস গড়ল সন্তান

মেধার জয় হয় সর্বত্রই! কথায় আছে ‘ইচ্ছা থাকলেই উপায় হয়’। অনেকেই তাদের জীবনের সাফল্য পাওয়ার জন্য দাঁতে-দাঁত চেপে লড়াই করে যায়। অনেক সময় দারিদ্রতা বাঁধা হয়ে দাঁড়ালেও, তাকে তুচ্ছ ভেবে এগিয়ে চলে তারা; সময়ও অবশ্য তাদের সঙ্গী হয়ে দাঁড়ায়! ঠিক সেরকমই মহারাষ্ট্রের ‘মাধব গীতে’র কাহিনী, জীবনের বহু চড়াই-উৎরাই পার করে, আজ সে আইএএস অফিসার (IAS officer)। কৃষকের ছেলে মাধব ছোটবেলা থেকেই অনেক কষ্ট করে পড়াশোনা করেছে। মাত্র ১১ বছর বয়সে মাতৃহারা হন মাধব, তবে তাতেও দমে যায়নি সেই একরত্তি ছেলে। জীবনের সাফল্য পাওয়ার জন্য কঠিনতম লড়াই চালিয়ে গেছে মাধব। তবে সবসময় সঙ্গী হিসেবে, বাবা ছিল তার পাশে।

অভাবের তাড়নায় স্কুলের ফিটুকু পর্যন্ত দিতে পারত না সে। এরপরে দ্বাদশ শ্রেণী উত্তীর্ণ হওয়ার পর, মাধব ঠিক করেছিল ইঞ্জিনিয়ারিং-এ ডিপ্লোমা করবে কিন্তু তাতেও তো টাকার দরকার! এই সময় সামনে এসে দাঁড়ায় তার হতদরিদ্র কৃষক বাবা, নিজের জমি-জায়গা সব বিক্রি করে ছেলেকে ইঞ্জিনিয়ারিং পড়তে পাঠিয়েছিলেন তিনি। এরপরে সেই জায়গায় সফল হন মেধাবী মাধব, ইঞ্জিনিয়ার হওয়ার পর বাবার সমস্ত ধার শোধ করে দিয়েছিল ছেলে।

ইঞ্জিনিয়ার হওয়ার পরও তার লক্ষ্য ছিল ইউপিএস (UPSC)-এর দিকে। সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল (viral) হওয়া ইউপিএসসির ইন্টারভিউর ভিডিও দেখে অনুপ্রাণিত হয়েছিল মাধব। ২০১৭ তে ইউপিএসসি পরীক্ষাতে বসেছিল সে কিন্তু অনুত্তীর্ণ হওয়ায় ফের ২১৯ সালে ইউপিএসসি পরীক্ষায় ২১০ নাম্বার স্থান অধিকার করেছিল মাধব। এরপরে ইন্টারভিউতে উত্তীর্ণ হওয়ার পর মাত্র ৩০ বছর বয়সে আইএএস অফিসার হিসেবে কাজে যোগদান করেন তিনি।

Related Articles