নিউজ

মধ্যবিত্তের কপালে চিন্তার ভাঁজ! লিটার পিছু ৩০ টাকা পর্যন্ত বাড়তে পারে পেট্রোলের দাম

কথিত আছে, ‘রাজায় রাজায় যুদ্ধ হয় আর উলুখাগড়ার প্রাণ যায়’। অনেক আগে থেকেই আশঙ্কা করা হচ্ছিল যে, তৃতীয় বিশ্ব যুদ্ধ লাগতে চলেছে। সম্ভাবনাকে সত্যি করে ক্রমশ যেন সেই পরিস্থিতিই তৈরি হচ্ছে সারা বিশ্বে। ইউক্রেনের মতো দেশের উপরে রাশিয়ার হামলা সবদিক থেকেই অনেকটা ধাক্কা দিয়েছে। শেয়ার বাজারে কার্যত ধস নেমেছে। তার সাথেই জানা যাচ্ছে ভারতে পেট্রোল-ডিজেলের দাম সর্বোচ্চ ৩০ টাকা পর্যন্ত বাড়তে পারে।

১২০ দিনের বেশি ভারতে পেট্রোল-ডিজেলের দাম ১০৫ টাকা বা তার আসে পাশেই অপরিবর্তিত রাখা হয়েছে। অন্য দিকে বিশ্ব তেল বাজারে ইতিমধ্যেই অপরিশোধিত তেলের দাম প্রতি ব্যারেল ১১০ টাকা ছাড়িয়েছে। বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন ২০১৪ সালের পর রাশিয়া-ইউক্রেনের যুদ্ধের জন্যই এই তেলের দাম ১০০ টাকা ব্যারেল প্রতি পার হলো। ভারত সরকার ইতিমধ্যেই স্ট্র্যাটেজিক রিজার্ভের সাহায্য নিয়েছে ঠিকই কিন্তু তেমন কোনো সুরাহা এখনও দেখা যাচ্ছে না।

গতকাল অর্থাৎ বুধবার, ব্রেন্ট ক্রুডের দাম বিশ্ব বাজারে ব্যারেল প্রতি ১১০ ডলার ছাড়িয়েছে। এর প্রভাব যে ভারতে খুব তাড়াতাড়ি পড়বে তা বুঝতে আর বাকি নেই কারোরই। এমনিই রান্নার জ্বালানি ও তেলের দাম প্রথম থেকেই আকাশ ছোঁয়া। তার পরেও যদি এমন ভাবে তেলের দাম বৃদ্ধি পায় তাহলে নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসের দাম আরও বাড়ার আশঙ্কা দেখা যাচ্ছে ইতিমধ্যেই।

কেন্দ্র সরকার ১লা ডিসেম্বর, ২০২১ সালে তেলের উপর থেকে সরকারের নির্ধারিত ভ্যাট কমিয়ে দিয়েছিলো। ৩০% ভ্যাট ভারত সরকার গ্রহণ করতো। সেখানে ১৯.৪০% ভ্যাট কমিয়ে দেয় মোদি সরকার। সরকারি যে সব তেল সংস্থাগুলি আছে তারা অনেকটাই ক্ষতির মুখ দেখছে বর্তমানে। ফলে দাম বৃদ্ধি করা ছাড়া টদের আর কোনো পথ নেই। এই মুহূর্তে দেশের ৪টি রাজ্যে বিধানসভা নির্বাচন চলছে। ৭ই মার্চ শেষ হবে সেই নির্বাচন। তারপরেই ভারত সরকার তেলের দাম বৃদ্ধি করবে বলে এমনটাই ধারণা করা হচ্ছে।

অন্যদিকে যদি সৌদি আরব, সংযুক্ত আরব আমিরশাহি তেলের জোগান বাড়িয়ে অনিশ্চিত বাজারকে কিছুটা শান্ত করতে পারে তাহলে দামের দিক থেকে কিছুটা স্বস্তি পাওয়া যেতে পারে। ব্রোকারেজ ফার্ম জেপি মরগান জানিয়েছেন – ‘সরকারি তেল সংস্থাগুলি বর্তমানে পেট্রোল এবং ডিজেলের জন্য ৫.৭ টাকার ক্ষতি করছে। এই প্রতিবেদন প্রকাশের পর থেকে অপরিশোধিত তেলের দাম বেড়েছে ৫ শতাংশের বেশি। যে কারণে সেই ক্ষতি পুষিয়ে নিতে লিটার প্রতি ৯-১০ টাকা দাম বৃদ্ধি করতেই হবে।’ অনেকে তো এমন মনে করছে যে, সাধারণ মানুষের পেট্রোল ও ডিজেল কিনতেই সারা মাসের টাকা চলে যাবে।

Related Articles