বিয়ের আসরে মৃত্যু কনের, ঘরে মৃতদেহ রেখে হবু শ্যালিকার সঙ্গে বিয়ে পাত্রের


বিয়ে বাড়ি মানেই আনন্দের প্রতিচ্ছবি ভেসে ওঠে আমাদের চোখে। কিন্তু সেই আনন্দের বিয়ে বাড়ি যদি বদলে যায় মৃত্যুর শোকে। শুনে অবাক লাগলে ও, ঠিক এমনটাই ঘটেছে উত্তরপ্রদেশের ইটাওযায়। বাড়িতে চলছে বিয়ে অনুষ্ঠান, কণে সহ পরিবারের সদস্যদের পাশাপাশি আত্মীয-স্বজন সকলেই বিয়ে বাড়িতে খাওয়া দাওয়া মজা আনন্দ করতে ব্যস্ত। অন্যদিকে বিয়ের ছাদনাতলায় বাড়ির লোকজন নিয়ে বিয়ে করতে মেয়ের বাড়ি চলে ও এসেছেন হবু বর মঞ্জিস কুমার। এর পাশাপাশি কনে সুরভিও সম্পূর্ন বিয়ের সাজে তৈরি হয়ে বিয়ের পিঁড়িতে বসার জন্য প্রস্তুত। কিন্তু বিপদ ঘটল তখনই। সব কিছু ঠিকই চলছিল হঠাৎই বিয়ের মণ্ডপে উঠতে গিয়েই আচমকাই শরীরের ভারসাম্য হারিয়ে ছাদনাতলাতেই লুটিয়ে পরে যান বিয়ের কনে সুরভি। কেউ কিছু আন্দাজ করার আগেই গোটা বিষয়টি ঘটে যায়।

এই পরিস্থিতিতে শেষ পর্যন্তও ডাক্তার ডাকতে বাধ্য হন সকলে। কিন্তু ততক্ষণে অনেক দেরি হয়ে গিয়েছে। চিকিৎসক এসে কনেকে সমস্ত পরীক্ষা নিরীক্ষা করে জানান, হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়েছে বিয়ের কনে সুরভির। এই খবরে গোটা বিয়ে বাড়িতে নেমে আসে শোকের ছায়া। কিন্তু সেই মুহূর্তে কি করা উচিত তা নিয়ে আলোচনায় বসেন দুই পরিবার। এরপর পরিবারের একজন ছোটো বোন নিশার সঙ্গে বিয়ে দেওয়ার পরামর্শ দেন। তখন দুই পরিবার থেকে এই সিদ্ধান্তে উপনীত হয় যে বিয়েতে পাত্রীর জায়গায় দিদির বদলে এবার বোনকেই হবু বরের সঙ্গে বিয়ে দেওয়া হবে। সেই সময়ে ওই পরিস্থিতিতে বিয়ে করতে রাজি ও হয়ে যান কনের ছোট বোন নিশা। এরপর মৃত কনে সুরভির দেহ পাশের একটি ঘরে রেখে, শেষে পর্যন্তও শ্যালিকার সঙ্গে বিয়ের পিঁড়িতে বসেন হবু বর, এবং তাদের বিয়ে সম্পন্ন হয়।

মৃতের দাদা সৌরভ বলেন, “আমরা বুঝতে পারছিলাম না এই পরিস্থিতিতে কি করা উচিত। দু’‌তরফের আত্মীয়রা আলোচনায় বসেন। তাঁদের মধ্যেই এক আত্মীয় ছোটো বোন নিশার সঙ্গে পাত্রের বিয়ে দেওয়ার প্রসঙ্গ তোলেন। তারপরেই উভয়পক্ষ সেই মতে রাজি হয়ে যান। সুরভির দেহ পাশের ঘরে রেখে নিশার সঙ্গে পাত্রের বিয়ে দেওয়া হয়। পাত্রপক্ষ চলে যাওয়ার পর সুরভির শেষকৃত্য সম্পন্ন করা হয়।”

সুরভির কাকা আজব সিং বলেন, ” কঠিন পরিস্থিতির মধ্যে দিয়ে যেতে হয়েছে পরিবারকে।একদিকে বড় মেয়ের দেহ পাশের ঘরে পড়ে রয়েছে। অন্য দিকে, ওই কম সময়ের মধ্যেই ছোটো মেয়ের বিয়ের আয়োজন। এই ধরনের মিশ্রিত আবেগে কোনও দিনও পড়িনি আমরা।একদিকে সুরভির মৃত্যুর শোক, অন্য দিকে নিশার বিয়ের সুখ এই মিশ্রিত অনুভূতিতে ডুবে গিয়েছে গোটা পরিবার।”

আরও পড়ুন

ভাইরাল ভিডিও

⚡ Trending News

আরও পড়ুন