পৌষ মাসের ২০ তারিখ হয়ে গিয়েছে। এর মাঝে পশ্চিমি ঝ"/>
নিউজ

চড়াও শীতের মাঝে বৃষ্টির সম্ভাবনা! ঠিক কিসের ইঙ্গিত আবহাওয়া দপ্তরের?

পৌষ মাসের ২০ তারিখ হয়ে গিয়েছে। এর মাঝে পশ্চিমি ঝঞ্ঝার বাধা রয়েছে। তবু এর মাঝে ঠাণ্ডা বেশ জমিয়ে ব্যাটিং করেই চলেছে। এই ভরা পৌষে সহজে মাঠ ছাড়তে নারাজ শীত ও। আর তার জেরেই মঙ্গলবার কিছুটা তীব্র হয়েছে ঠান্ডার দাপট৷ তাই তো রাজ্যে ক্রমশ নেমেই চলেছে ঠাণ্ডার পারদ। আলিপুর আবহাওয়া দফতর জানিয়েছে, বৃহস্পতিবার থেকে বেশকিছুটা বদল হতে পারে বাংলার আবহাওয়া। একধাক্কায় বেশ অনেকটাই বাড়বে তাপমাত্রার পারদ এবং দেখা দিতে পারে বৃষ্টিও।

ফের পশ্চিমী ঝঞ্ঝার আগমন দেখা দেবে বাংলার আবহাওয়ায়। তাই আলিপুর হাওয়া অফিস আরও জানিয়েছে, বুধবার অবধি বাংলার উত্তরের এবং দক্ষিণের সমস্ত জেলায় শুষ্ক আবহাওয়া বিরাজ করবে। কিন্তু তারপর থেকেই বদলে যাবে আবহাওয়ার গতি। এরপর চড় চড় করে বাড়বে তাপমাত্রার পারদ এবং বৃষ্টির পরিস্থিতি তৈরি হতে পারে। আগামী ৪৮ ঘণ্টায় রাতে ১ থেকে ২ ডিগ্রি বাড়বে পারদ।

এর মাঝে আজ আবহাওয়াবিদরা ঘন কুয়াশার সর্তকতা রাজ্যে। উত্তরবঙ্গে ঘন থেকে অতি ঘন কুয়াশা তৈরী হয়েছে। দক্ষিণবঙ্গের পাঁচ জেলায় ঘন কুয়াশার সতর্কতা। সপ্তাহের শেষে বাড়বে তাপমাত্রা। তবে চলতি শীতের মরশুমের দ্বিতীয় ইনিংসেরও আজ শীতলতম দিন। মাঝে গরম পড়লেই পৌষের শেষ দিকে মাঘ মাসের গোঁড়াতে আবারও কিছুটা ঠাণ্ডার কামড় সহ্য করতে হতে পারে গোড়া বঙ্গবাসীকে। আর এই সময় তো বাঙালীর জমিয়ে পিঠে, পুলি, পায়েস, নতুন গুড়ের মিষ্টি খাওয়ার সময়।

আজকের দিনে কলকাতা শহরের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা থাকবে ২২ ডিগ্রি সেলসিয়াসের আশেপাশে এবং সর্বনিম্ন তাপমাত্রা থাকবে ১৩ ডিগ্রি সেলসিয়াসের আশেপাশে। সকালের দিকে আবছা রোদ এবং রাতের দিকে আবছা আকাশ থাকার সম্ভাবনা রয়েছে।বাতাসে আপেক্ষিক আর্দ্রতার পরিমাণ সর্বাধিক ৯৫ শতাংশ। আগামী ৭২ ঘন্টার মধ্যে রাজ্যে বৃষ্টির কোনো সম্ভাবনা নেই।

Related Articles