যা আশঙ্কা করা হয়েছিল তাই হলো। রাশিয়ার (Russia) প্রেসি"/>
নিউজ

যে কারণে ইউক্রেনের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করলো রাশিয়া!

যা আশঙ্কা করা হয়েছিল তাই হলো। রাশিয়ার (Russia) প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন (Vladimir Putin)। সবাইকে চমকে দিয়েই কার্যত বিনা শব্দে যুদ্ধ ঘোষনা করে দিলেন ইউক্রেন (Ukraine)-এর বিরুদ্ধে। বৃহস্পতিবার সকালে এক টেলিভিশন বার্তায় ইউক্রেনে সামরিক অভিযানের কথা ঘোষণা করেছেন পুতিন। রাষ্ট্রপুঞ্জ এই কঠিন পরিস্থিতি নিয়ে ইতিমধ্যেই বৈঠক সেরে ফেলেছে। রাশিয়াও নিজের বিবৃতি দিয়েছে এই ব্যাপারে। আবার রাষ্ট্রপুঞ্জ এই বিষয়ে তাদের মতামত জানিয়েছে। এক নজরে দেখে নিন যুদ্ধ নিয়ে কে কি বলছে –

১] বৃহস্পতিবার সকাল ৮:৩০ মিনিট সময়ে ইউক্রেনে সামরিক অভিযানের ঘোষণা করেছেন পুতিন। তার সাথেই ইউক্রেনের সেনাদের অস্ত্র ছেড়ে দেওয়ার কথাও বলেছেন তিনি।

২] রক্তক্ষয় হলে ইউক্রেনের দায় নিতে হবে – জানিয়ে দিয়েছেন পুতিন।

৩] রাষ্ট্রপুঞ্জের মহাসচিব রাশিয়ার প্রেসিডেন্টকে তাদের সেনাবাহিনী সরিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য অনুরোধ জানিয়েছিলেন। যুদ্ধ নয় বরং শান্তি বজায় রাখতে আবেদন জানিয়েছেন তিনি।

৪] রাষ্ট্রপুঞ্জের জরুরি সেই অধিবেশনে ইউক্রেনের এক প্রতিনিধি বলেছেন – ‘‘এখন অস্ত্র ছাড়ার কথা বলার সময় পেরিয়ে গিয়েছে। আমার দেশে রাশিয়ার হামলা শুরু হয়ে গিয়েছে।’’

৫] অপরদিকে আমেরিকার প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন জানিয়েছেন – “বিনা প্ররোচনায় এবং সম্পূর্ণ অযৌক্তিকভাবে এই হামলা চালানোর সম্পূর্ণ দায় নিতে হবে রাশিয়াকে। এর পরিণতি রাশিয়ার জন্য ভয়ঙ্কর হবে।”

৬] আবার ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট Volodymyr Zelenskyy রাশিরয়ার সাধারণ মানুষকে এই আসন্ন যুদ্ধের বিরুদ্ধে নিজেদের আওয়াজ তুলতে অনুরোধ জানিয়েছেন।

৭] ইউক্রেনের কিভে শহরের সবথেকে বড়ো বিমানবন্দর বরিস্পিলে গুলি বর্ষণের খবর পাওয়া গেছে। শুধু তাই নয়, বিভিন্ন সংবাদ সংস্থা দাবি করেছে দেশের বিভিন্ন জায়গা থেকে এমন খবর এসেছে।

৮] যুদ্ধের ঠিক একদিন আগে আমেরিকা ও ইউরোপ, রাশিয়ার উপরে বিভিন্ন অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞা চাপিয়ে দিয়েছিলো। ভাবনা ছিলো রাশিয়া যুদ্ধ থেকে পিছু হটবে। তবে তেমনটা আদতে একদমই হয়নি।

৯] ইউক্রেনের যেসব সামরিক ঘাঁটি আছে তা লক্ষ্য করে যে কোনো সময় মিসাইল হামলা শুরু হয়ে যেতে পারে এমন খবর জানিয়েছে কিছু আন্তর্জাতিক সংবাদ সংস্থা।

তবে আজ শুক্রবার পর্যন্ত রাশিয়া ও ইউক্রেন সেনা বাহিনীর লড়াই খবরই সামনে এসেছে।

Related Articles