লাইফস্টাইল

আলু দিয়ে বানিয়ে ফেলুন, সকালের মুখরোচক ও স্বাস্থকর জলখাবার

আলু খেতে ভালোবাসে না এমন মানুষ ভূ-ভারতে খুঁজে পাওয়া দুষ্কর। প্রায় সব রান্নাতেই কম-বেশি আলু ব্যবহার করা হয়ে থাকে। আলু দিয়ে অনেক পদ তৈরী করা যেতে পারে। তরকারি বা ঝোলে আলু ব্যবহার করা ছাড়াও জলখাবার বা স্ন্যাকস জাতীয় খাবার আলু দিয়ে প্রস্তুত করা যায়।
সেই রকমই এক জনপ্রিয় আলু দিয়ে বানানো খাবার হল ‘আলু পরোটা’, তবে এই আলু পরোটা নরম নয়, মুচমুচে বা খাস্তাজাতীয় হবে। ভিন্ন স্বাদের এই আলু পরোটা অনেকেই হয়তো খাননি, তাই আজ আপনাদের সঙ্গে ভাগ করে নেব মুখরোচক ‘আলু পরোটা’-র রেসিপি।

•উপকরণ:
১)ময়দা (২ কাপ)

২)নুন (স্বাদ অনুযায়ী)

৩)তেল (পরিমাণ অনুযায়ী)
৪)জল (পরিমাণ অনুযায়ী)
৫)গোটা জিরে (১ চামচ-ছোট)
৬)আদা কুচি (হাফ চামচ- ছোট)
৭) কাঁচালঙ্কা কুচি (ঐচ্ছিক)

৮)হলুদ গুঁড়ো (১ চামচ- ছোট)
৯)শুকনো লঙ্কা গুঁড়ো (১ চামচ- ছোট)

১০)জিরে গুঁড়ো (১ চামচ- ছোট)
১১)আলু সেদ্ধ (৩-৪ টি)

১২)ধনেপাতা কুচি

•প্রণালী:
১)প্রথমে একটি পাত্রে ময়দা, স্বাদ অনুযায়ী নুন ও দুই চামচ তেল দিয়ে ভালো করে হাত দিয়ে মিশিয়ে নিতে হবে।

২)এরপর অল্প অল্প করে জল দিয়ে ভালো করে ময়দা মেখে ডো প্রস্তুত করে নিতে হবে।
৩)ডো প্রস্তুত হয়ে গেলে ১৫-২০ মিনিট ঢাকা দিয়ে রাখতে হবে।

৪)এরপরে আলুর পুর প্রস্তুত করার জন্য প্রথমে ফ্রাইংপ্যানে কিছু পরিমাণ তেল দিয়ে গরম করে নিতে হবে।
৫)তেল গরম হয়ে গেলে তার মধ্যে একে একে গোটা জিরে ও আদাকুচি দিয়ে কিছুক্ষণ নেড়ে নিতে হবে।

৬)গোটা জিরে ও আদাকুচি খানিক ভাজা ভাজা হয়ে গেলে তারমধ্যে ইচ্ছে মতো কাঁচালঙ্কা কুচি দিয়ে দিতে পারেন।
৭)ফ্রাইং প্যানে এরপর হলুদ গুঁড়ো, শুকনো লঙ্কা গুঁড়ো, জিরে গুঁড়ো, স্বাদ অনুযায়ী নুন, আগে থেকে সেদ্ধ করে রাখা আলু ভেঙে ভেঙে দিয়ে সব একসাথে ভালো করে ৩-৪ মিনিট নেড়ে ভেজে নিতে হবে।
৮)আলুর পুর প্রস্তুত হয়ে গেলে কিছু ধনেপাতা কুচি দিয়ে মিশিয়ে নিতে হবে।
৯)এরপর আগে থেকে মেখে রাখা ডো বা ময়দা থেকে আলাদা আলাদা লেচি ভাগ করে নিতে হবে। সাধারণ পরোটার তুলনায় এই পরোটায় লেচির পরিমাণ বেশি থাকবে।
১০)এরপর প্রত্যেকটি লেচি আলাদা আলাদা করে বড়ো করে ছড়িয়ে ভালো করে বেলে নিতে হবে।

১১)তার মধ্যে কিছু পরিমাণ করে আলুর পুর দিয়ে চারপাশ ভালো করে ভাঁজ করে আটকে দিতে হবে।

১২)মুখ বন্ধ করার সময় সামান্য জল দিয়ে ভালো করে আটকে দিতে হবে যাতে ভাজার সময় পুর বেরিয়ে না আসে।
১৩)এরপরে কড়াইয়ে বা বড়ো কোনো ফ্রাইংপ্যানে বেশি পরিমাণ তেল দিয়ে ৩-৪ মিনিট গরম করে নিতে হবে।
১৪)তেল গরম হয়ে এলে পুর ভরা পরোটা একে একে ছাঁকা তেলে দিয়ে দিতে হবে।

১৫)এদিক-ওদিক উল্টেপাল্টে পরোটার দুই দিক হালকা সোনালী রঙ না আসা পর্যন্ত ভালো করে ভাজতে হবে।

ব্যাস, তাহলেই প্রস্তুত হয়ে যাবে মুখরোচক এই জলখাবার। ভাজার পদ্ধতির কারণে অন্যান্য আলু পরোটার তুলনায় এই আলু পরোটা স্বাদে অনেকটাই পৃথক হবে। তাহলে আর দেরি না করে চটপট বাড়িতে বানিয়ে ফেলুন মুচমুচে ও ভিন্ন স্বাদের আলু পরোটা।

Related Articles