Thursday, December 9, 2021

নেই বিয়ের মঙ্গলসূত্র! ভালোবাসার বাঁধনকে কেন মুছে ফেললেন বিশ্বসুন্দরী ঐশ্বর্য?

ঐশ্বর্য (Aishwarya Rai Bachchan) মানেই সৌন্দর্য। সে দর্শনেই হোক, কিংবা স্টাইল স্টেটমেন্টে – সবদিক থেকেই ঐশ্বর্য সব দিক থেকে এগিয়ে। নিজের জৌলুস তিনি কড়াভাবে ধরে রেখেছেন। অভিষেক-ঐশ্বর্যর বিয়ের সময় মুখিয়ে ছিলেন প্রতিটা মানুষ। তারপর কেটে গিয়েছে এতোগুলো বছর। তবুও বচ্চন পরিবারের অন্দরমহলের খবর জানতে আজও সমানভাবে উৎসাহী সকলেই।

ঐশ্বর্যের মঙ্গলসূত্র একসময় চর্চার কেন্দ্রে উঠে এসেছিল। একজন বিবাহিত মহিলার কাছে মঙ্গলসূত্র ভীষণ দামি একটি জিনিস। এটি অমূল্য, যার মূল্য দিয়ে কোনও তুলনা চলে না। ২০০৭ সালে বিয়ের সময় স্ত্রী ঐশ্বর্যকে তার স্বামী অভিষেক বচ্চন (Abhishek Bachchan) একটি মঙ্গলসূত্র পরিয়ে দেন। আর এই মঙ্গলসূত্রই সকলের এজর কেড়ে নিয়েছিল।

ঐশ্বর্যর মঙ্গলসূত্রটি ছিল দুই ধাপে গাঁথা। আর মাঝখানে একটি হীরে বসানো ছিল। বিয়ের সময় অনেক গয়নার মাঝেও নজর কাড়ছিল এই মঙ্গলসূত্র। আর এটির দাম ছিল ৪৫ লাখ টাকা। রাই সুন্দরীকে আরও অনন্য করেছিল এই হীরের মঙ্গলসূত্রটি। কিন্তু এই মঙ্গলসূত্রটিকে ঐশ্বর্য বদলে ফেলার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন। তার কারণ জানেন কি?

না না, তাদের স্বামী-স্ত্রীর সম্পর্কে কোনও ঝড় ঝাপটা আসেনি। ঐশ্বর্য তার সংসারকে আজও কড়াভাবে ধরে রেখেছেন। বচ্চন বধূ রাই সুন্দরী কোনওদিনই গলায় হার পরতে পছন্দ করেন না। খুব একটা স্বাচ্ছন্দ্যও নয় তিনি। অন্যদিকে মঙ্গলসূত্রের আকারও বেশ বড়ো ছিল। আর সেই কারণেই ঐশ্বর্য এটিকে ছোটো করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন। অন্যদিকে, মঙ্গলসূত্রটি দুই ধাপে বিস্তৃত হওয়ায় তিনি মনে করেছিলেন তার সন্তান জন্মানোর সময় সমস্যা দেখা দিতে পারতো। তাই এইসব সমস্যার কথা ভেবেই মাঝের হীরেটা রেখে মঙ্গলসূত্রটিকে আকারে ছোটো করেন রাই সুন্দরী। এখন তিনি এটিকে একধাপে পরিণত করেছেন। ঐশ্বর্যকে এই মঙ্গলসূত্রটি সদাসর্বদা পরে থাকতে দেখা যায়।

⚡ Trending News

আরও পড়ুন