×
বিনোদন

বিরাট-অনুষ্কার দেহরক্ষী সোনুর বার্ষিক বেতন শুনলে লজ্জা পাবে যেকোনো বড় কোম্পানির সিইও

Advertisements
Advertisements

তারকারা রাস্তায় বেরোলেই তাদের ছেঁকে ধরে অনুরাগী এবং পাপারাতজিদের দল। নিজেদের বাড়তি সুরক্ষা এবং সতর্কতা ব্যবহার করার জন্য তারকারা অনেক সময় দেহরক্ষী রাখে। তবে আজকালকার দিনে তাবর-তাবর অভিনেতা-অভিনেত্রীদের দেহরক্ষীদের রাখতেই হয়। তবে শুধু অভিনেতা-অভিনেত্রী নয়, যেকোন তারকারাই দেহরক্ষী রাখে। যার ফলে তাদের বাড়তি সুরক্ষা বজায় থাকে। বর্তমানে অবশ্য বহু দেহরক্ষী সংস্থা গঠিত হয়েছে, যেখান থেকে যোগ্য এবং দক্ষ দেহরক্ষী পাঠানো হয়। এই তালিকায় যার নাম সব সময় শিরোনামে উঠে আসে, তিনি হলেন ‘বিরাট কোহলি’ (Virat kohli) এবং অনুষ্কা শর্মার (Anushka Sharma) বডিগার্ড ‘সোনু সিং’।

Advertisements

সোনুর আসল নাম হল ‘প্রকাশ সিং’ (Prakash shing)। বিরাট এবং অনুষ্কার মতন তারকাদের দেহরক্ষী থাকাটা একান্ত কাম্য। আর সোনু হলো তাদের জন্য একদম উপযোগী এক দেহরক্ষী। অনুষ্কা এবং বিরাট অবশ্য তাকে নিজেদের পরিবারের সদস্য বলেই গণ্য করেন। একবার শুটিং সেটে তার জন্মদিন পর্যন্ত পালন করেছিলেন তারা। তবে সোনু কিন্তু বারংবার শিরোনামে উঠে আসে তার মাইনের জন্য। জানা গেছে, তার বার্ষিক আয়ের পরিমাণ ১ কোটি ২০ লক্ষ টাকা। অর্থাৎ মাস গেলে সোনু পায় ১০ লক্ষ টাকা করে। যদিও বিরাট অনুষ্কার মতন পাওয়ার কাপলদের বার্ষিক আয়ের কাছে এইটা খুবই নগণ্য।

অনুষ্কার বরাবরই নিজের ব্যক্তিগত জীবনকে কিছুটা আড়াল করে রাখতে চায়। সে কারণে এখনো পর্যন্ত কন্যা ভামিকার মুখ প্রকাশ্যে আনেনি তারা। এই গোপনীয়তা বজায় রাখতে অনেকাংশের সাহায্য করে সোনু। এমনকি ভামিকার মুখ প্রকাশের না আনতে দেওয়ার জন্য তিনি যথেষ্ট দক্ষতার সাথে সবকিছু সামলান। এত কিছুর পরও একবার ভামিকার মুখ ধরা পড়েছিল ক্যামেরায়। পরে অনুষ্কা আইনি পদক্ষেপ নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিলে, মিডিয়া থেকে সেটি ব্লার করে দেওয়া হয়।

 

View this post on Instagram

 

Shared post on

বর্তমানে নিজের ছবির কাজেই বেশ ব্যস্ত রয়েছেন অভিনেত্রী। তৈরি হচ্ছে ভারতীয় মহিলা ক্রিকেটের ঝুলন গোস্বামীর বায়োপিক ‘চাকদহ এক্সপ্রেস’। আর এতে মুখ্য ভূমিকায় রয়েছেন তিনি। আপাতত ছবির পোস্ট প্রোডাকশনের কাজ চলছে।

Advertisements