‘চার চারটে বছর নষ্ট হয়ে গিয়েছে’, দেবের সঙ্গে বিচ্ছেদ নিয়ে বিস্ফোরক ‘শুভশ্রী’,

Actrees

Subhashree Ganguly টলিউড ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির অন্যতম জনপ্রিয় অভিনেত্রীর পুরনো এক ভিডিও সম্প্রতি নতুন করে নেট দুনিয়ায় ভাইরাল হয়েছে। জি বাংলার একসময়ের জনপ্রিয় শো ‘হ্যাপি পেরেন্টস ডে’-তে (Happy Parents Day) এক পর্বে শুভশ্রী গাঙ্গুলী নিজের মা-বাবার সঙ্গে উপস্থিত হয়েছিলেন। সেই বিশেষ পর্বে নিজের জীবনের অনেক অজানা তথ্য তিনি সকলের সামনে পেশ করেছিলেন, আর সেই ভিডিও নেট দুনিয়ায় আবার ভাইরাল হয়েছে।

শোয়ের মঞ্চে শুভশ্রী জানিয়েছিলেন তিনি তাঁর দিদির উৎসাহতেই অভিনয় জগতে প্রবেশ করেছেন। খবরের কাগজে এক বিজ্ঞাপন দেখে শুভশ্রীর দিদি ও মা বাড়ির কাউকে কিছু না জানিয়ে শুভশ্রীকে জীবনের প্রথম অডিশনে নিয়ে গিয়েছিলেন। প্রথম দিকে নাকি শুভশ্রীর বাবা এই সব বিষয়ে একদমই সাপোর্টিভ ছিলেন না। পরবর্তীতে অবশ্য শুভশ্রীর সাফল্যে তাঁর বাড়ির সকলেই ভীষণ উচ্ছ্বসিত হয়েছিলেন।

এই কথা সকলেরই জানা এক সময় টলিউডের বর্তমান সুপারস্টার দেবের (Dev) সঙ্গে শুভশ্রী (Subhashree Ganguly) প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়েছিলেন। সেই সময়ে তাঁর জীবনে অনেক ওঠা-পড়া এসেছিল। এই প্রসঙ্গে অভিনেত্রী বলেন,”আমার লাইফে একটা ফেজ এসেছিল যখন কাজ থেকে আমার ফোকাসটা একদম শিফ্ট করে গেছিল এবং সেটা কিন্তু আমার ডিসিশন ছিল। আফটার ‘পরাণ যায়…’ আমি কাজটা ছেড়ে দিয়েছিলাম।” সঞ্চালক দেবশঙ্কর হালদার এই কথা শুনে শুভশ্রীকে জিজ্ঞেস করেন তিনি নিজের ইচ্ছেয় কাজ ছেড়েছিলেন না কি ছেড়ে দিতে বাধ্য হয়েছিলেন, শুভশ্রী জোর গলায় এই ডিসিশন তাঁর সম্পূর্ণ নিজের ছিল বলেই জানান।

এরপরে শুভশ্রী বলেন,”যেটার জন্য ডিসিশনটা নিয়েছিলাম সেই জিনিসটা যখন থাকলো না জীবনে তখন আমি বুঝতে পারলাম লাইফ ইজ ভেরি আনপ্রেডিক্টেবল। কিন্তু আমি রিগ্রেট করি না যে কেন আমি আমার চারটে বছর ওয়েস্ট করেছি। আমি আমার বাবা-মার সাথে সব কথা শেয়ার করতে পারতাম না, আমি আমার খুশিটাই আমার বাবা-মার সাথে শেয়ার করতে চাই। ডেফিনেটলি ওরা বুঝতে পারতো!” শুভশ্রী সেই সময় তাঁর মানসিক অবস্থা কী রকম হয়েছিল সেই বিষয়টি সোজাসুজি শোয়ের মঞ্চের জানিয়েছেন। তিনি বলেন বাবা-মায়ের সাথে বসে গল্প করতে করতেও তিনি পাঁচ মিনিট পর বাথরুমে গিয়ে কেঁদে আসতেন। শোয়ের এই বিশেষ পর্বে শুভশ্রী কারোর নাম না নিলেও এইসব গল্প যে অভিনেতা দেবের (Dev) সম্পর্কে ছিল তা সকলেই স্পষ্টভাবে বুঝতে পেরেছেন। বেশ কয়েক বছর আগের এই ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় নতুন করে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করেছে।