Wednesday, December 1, 2021

রাক্ষস-খোক্কসদের দিয়েই অভিনয়ের জীবনের সূত্রপাত, টলিউডে কাস্টিং এর অভিজ্ঞতা শেয়ার করলেন সোহিনী

খড়দহ থেকে কলকাতায় এসে জীবনটাকে একটু একটু করে গড়ে তুলেছিলেন অভিনেত্রী। নানান অভিজ্ঞতার মধ্যে দিয়ে ইন্ডাস্ট্রিতে (Industry) পার করে দিয়েছেন এতোগুলো বছর। অভিনেত্রী সোহিনী সরকার (Sohini Sarkar) তার সুন্দর ও মার্জিত ব্যবহারে খুব অল্প সময়ের মধ্যেই জয় করে নিয়েছেন দর্শকদের মন। কিন্তু এই যাত্রাপথটা মোটেও সহজ ছিল না।

রাক্ষসদের আতঙ্কে সোহিনীর কাহিনী শুরু হলেও রাজপুত্র-রাজকন্যার কাহিনী দিয়ে তা শেষ হয়। বাংলার জনপ্রিয় সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে সোহিনী জানিয়েছেন, “আমার জীবনও সে ধারায় চলেছে। রাক্ষস-খোক্কসদের দিয়েই আমার জীবন শুরু। তার পর গল্পের মতোই রাজপুত্র এসে সোনার কাঠি রূপোর কাঠি ছুঁয়ে দিয়ে রাজকন্যাকে জ্যান্ত করে দেয়। শেষে তারা সুখে-শান্তিতে বাস করে”। তবে, এই রাজকন্যা বেশ দাপুটে। তিনি একাই সব রাক্ষস ও খলনায়কে শায়েস্তা করে এসেছেন।

তবে, সেই রাক্ষসের নাম তিনি উল্লেখ করেননি। সোহিনী জানান, তখন তিনি সবেমাত্র অভিনয় জীবনে পা রেখেছেন। পাশাপাশি মন দিয়ে কাজ করারও চেষ্টা করছেন। বয়সটাও খুব কম, ক্লাস ইলেভেন কিংবা টুয়েলভে পড়েন। সোহিনী আরও বলেন, ” ‘‘আমি তখন খুবই ছোট। একাদশ কি দ্বাদশ শ্রেণীতে পড়ি তখন। মন দিয়ে কাজ করার চেষ্টা করতাম। কিন্তু সে আমাকে প্রচণ্ড বকছে। আমি বুঝতে পারতাম না, কেন বকছে। ঠিক পর মুহূ্র্তেই সাজঘরে গিয়ে আমার সঙ্গে আন্তরিক হওয়ার চেষ্টা করত সে। যাতে আমি তার জালে খুব সহজেই ধরা দিই। কিন্তু তা দিইনি। ২০০৫-‘০৬ সালের ঘটনার কথা বলছি আমি। সে সময় তো আর ফেসবুক ছিল না! তাই সবাইকে জানতে পারিনি। কিন্তু ধারাবাহিকে আমার সিনিয়ররা আমাকে সাহায্য করেছিলেন।’’

তবে, সেই রাক্ষসের নাম তিনি উল্লেখ করেননি। সোহিনী জানান, তখন তিনি সবেমাত্র অভিনয় জীবনে পা রেখেছেন। পাশাপাশি মন দিয়ে কাজ করারও চেষ্টা করছেন। বয়সটাও খুব কম, ক্লাস ইলেভেন কিংবা টুয়েলভে পড়েন। সোহিনী আরও বলেন, ” ‘‘আমি তখন খুবই ছোট। একাদশ কি দ্বাদশ শ্রেণীতে পড়ি তখন। মন দিয়ে কাজ করার চেষ্টা করতাম। কিন্তু সে আমাকে প্রচণ্ড বকছে। আমি বুঝতে পারতাম না, কেন বকছে। ঠিক পর মুহূ্র্তেই সাজঘরে গিয়ে আমার সঙ্গে আন্তরিক হওয়ার চেষ্টা করত সে। যাতে আমি তার জালে খুব সহজেই ধরা দিই। কিন্তু তা দিইনি। ২০০৫-‘০৬ সালের ঘটনার কথা বলছি আমি। সে সময় তো আর ফেসবুক ছিল না! তাই সবাইকে জানতে পারিনি। কিন্তু ধারাবাহিকে আমার সিনিয়ররা আমাকে সাহায্য করেছিলেন।’’

⚡ Trending News

আরও পড়ুন