বিনোদন

লতাজির মৃত্যুর আগের ৪৮ ঘণ্টার তথ্য ফাঁস করলেন চিকিৎসকরা!

দেখতে দেখতে প্রায় পাঁচটা দিন কেটে গেছে লতাজি গত হয়েছেন। কিন্তু তারপরেও তাঁর মৃত্যুর শোক যেন কিছুতেই ভুলতে পারছেন না দেশবাসী। সরস্বতী পুজোর ঠিক পরের দিনই সরস্বতীর বরকন্যা পরলোক গমন করেছেন। মৃত্যুকালে ৯২ বছর বয়স হয়েছিল ‘সুরসম্রাজ্ঞী’ লতা মঙ্গেশকরের। করোনা আক্রান্ত হয়ে মুম্বাইয়ের ব্রিচ ক্যান্ডি হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন কোকিল কণ্ঠী গায়িকা।

দীর্ঘ ২৮ দিনের লড়াইয়ের পর চিকিৎসকদের সমস্ত চেষ্টা ব্যর্থ করে চলে গেছেন লতাজি। শেষে করোনা রিপোর্ট নেগেটিভ আসলেও শেষ রক্ষা হয়নি। বার্ধক্যজনিত কারণে শরীরে নানান সমস্যা দেখা দিয়েছিল লতার। মৃত্যুর ঠিক আগের ৪৮ ঘণ্টা কি করেছিলেন লতা মঙ্গেশকর? সেই কথাই এবার প্রকাশ্যে আনলেন কিংবদন্তি গায়িকার চিকিৎসকরা।

লতা মঙ্গেশকরের চিকিৎসক প্রতিত সামদানি জানিয়েছেন, অত কষ্টের মধ্যেও লতাজির মুখে সবসময় মৃদু হাসি লেগে থাকতো। যেটা কখনোই ভোলবার নয়। প্রতিতের সঙ্গে তাঁর মেয়েও লতাজির সান্নিধ্য পেয়েছে। এটাকে আশীর্বাদ বলে মনে করছেন লতাজির চিকিৎসক। তিনি জানান – তাঁর মেয়ের সঙ্গে ভিডিও কলে কথা হতো। তাই লতাজির প্রয়াণে কষ্ট পেয়েছেন তাঁর মেয়েও। প্রতিত আরও জানান যে, অসুস্থতার জন্য গত ৩ বছর ধরে বেশি কথাও বলতে পারতেন লতাজি। কিন্তু তারপরেও সবার জন্য ভাবতেন তিনি। “সবার যেন সমান চিকিৎসা হয়” – এমনটাই বলতেন ‘জীবন্ত সরস্বতী’ লতা মঙ্গেশকর।

নার্স সারিকা দেবানন্দ ভিঁসে ও অশ্বিনীও লতাজির খুব কাছের মানুষ হয়ে গিয়েছিলেন এই কদিনে। সেবিকা সারিকা লতা মঙ্গেশকরের শেষ মুহূর্তের প্রসঙ্গে জানিয়েছেন – শিবাজী পার্কে লতা মঙ্গেশকরের শেষকৃত্যের সময় উপস্থিত ছিলেন তিনি। তিনি লতাজিকে খুব মিস করবেন বলে জানান। এরই সঙ্গে বলেন – শেষ দুদিন লতাজির শারীরিক অবস্থা খুবই খারাপ হওয়ায় তাঁকে ভেন্টিলেশনে ফিরিয়ে আনা হয়। লতার অক্সিজেন লেভেল ক্রমশ কমতে শুরু করেছিল। কারণ গায়িকার ফুসফুসে আরও দুটো নিউমোনিয়ার প্যাচ তৈরি হয়েছিল। তখনও লতা মঙ্গেশকর তাঁদের চিনতে পেরেছিলেন জানান সে নার্স। এমনকি তাঁরা কোনো মজার কথা বললেই লতাজি যে বুঝতে পারতেন তা জানিয়েছেন সারিকা।

Related Articles