বিনোদন

ক্যান্সার কেড়ে নিয়েছে জীবন, সদা হাস্যজ্জল অভিনেতা গৌতম দে-কে মানুষ মনে রেখেছেন তাঁর অভিনয়ে

সদাহাস্যময় গৌতম দে (Gautam Dey) কে আজও ভুলতে পারেনি আপামর দর্শক। ইন্দর সেন (Indar Sen) পরিচালিত ‘জন্মভূমি’ সিরিয়াল দিয়ে সর্বপ্রথম লাইমলাইটে এসেছিলেন তিনি। তাঁর জীবনের সবথেকে উল্লেখযোগ্য প্রজেক্ট ছিল এটি । এরপর তাঁকে আর পিছন ফিরে তাকাতে হয়নি । বেশিরভাগ সময় নেগেটিভ রোলে অভিনয় করলেও তাঁর জনপ্রিয়তা উল্লেখযোগ্য। ক্যান্সার রোগে আক্রান্ত হয়ে তিনি আমাদের সকলকে ছেড়ে চলে গেলেও আজ পর্যন্ত দর্শক তাঁকে ভুলতে পারেননি।

ইন্দোর সেন (Indar Sen) পরিচালিত ‘জন্মভূমি’ সেই সময় একটি অন্যতম জনপ্রিয় সিরিয়াল ছিল। এই সিরিয়ালে গৌতম দে-এর (Gautam Dey) চরিত্রের নাম ছিল নরনারায়ন । জন্মভূমি সিরিয়াল পিসিমা মিতা চট্টোপাধ্যায়ের (Mita Chattapadhyay) দূরসম্পর্কের আত্মীয় নর নারায়ণ এবং তার বউ স্বর্ণময়ী ময়নাগড়ে এসে উপস্থিত হয়েছিলেন । বিভিন্ন ছলনার আশ্রয় নিয়ে এবং বুদ্ধি লাগিয়ে ময়না গড়ের সমস্ত সম্পত্তি দখল করায় ছিল এই দম্পতির আসল উদ্দেশ্য। সিরিয়ালে যেমনভাবে বাড়তে থাকে নরনারায়ন এবং তার স্ত্রীর ভিলেনি চাল তেমনি ভাবে তাদের চরিত্র জনপ্রিয় হতে থাকে। দর্শকদের কাছে স্বর্ণময়ী চরিত্রে অভিনয় করা চৈতালি চক্রবর্তী(Chaitali chakraborty) ও বিপুল জনপ্রিয়তা পান । বর্তমানে চৈতালি(chaitali chakraborty) কটকটি রাক্ষসী রোলে অভিনয় করছেন।

তবে ক্যারিয়ারের প্রথম দিকে ভিলেনের রোল দিয়ে শুরু করলেও তাঁর চেহারার সৌন্দর্যের জন্যে তিনিই যথেষ্ট জনপ্রিয়তা পান। সৌম্যকান্তি এবং সুদর্শন চেহারার জন্য পরবর্তীকালে সব ধরনের চরিত্রে যথেষ্ট জনপ্রিয়তা পেয়েছিলেন। গৌতম দে(Gautam Dey) পরবর্তীকালে বিভিন্ন রকম সিরিয়াল এবং চলচ্চিত্রে অভিনয় পান। তিনি কখনও তিনি স্নেহময় দাদা, কখনো তিনি আন্তরিক স্বামী ,আবার কখনো যত্নবান বাবা সব রকমের রোলে তিনি নিজেকে মেলে ধরে ছিলেন। টেলিভিশনে কাজ করার সাথে সাথেই থিয়েটারেও সমান জনপ্রিয়তা পান।

অভিনয়ে আসার আগেই তিনি ছিলেন একজন স্টেট ব্যাঙ্কের কর্মচারী। রাসবিহারী এবং জিবনদীপ সভায় তিনি দীর্ঘদিন কর্মচারী হিসেবে কাজ করেছেন। ছোটপর্দায় তিনি বেশকিছু ফিল্ম করেছিলেন । রাজা সেন এর ‘দামু’ ছবিতে তিনি অন্যতম একটি রোল প্লে করেছিলেন। এছাড়াও অমল রায় ঘটকের(Amal Roy Ghatak) ‘দেবর’ এবং ‘উজান’ ছবিতে তিনি কাজ করেন। এছাড়া তিনি আরও বহু ছোট-বড় পরিচালকের সাথে কাজ করেছেন। রবি ঘোষ(Rabi Ghosh), দুলাল লাহিরি(Dulal Lahiri), লিলি চক্রবর্তী(Lili ckharaborty), মতো বিখ্যাত অভিনেত্রী অভিনেতা দের সাথে তিনি কাজ করেছেন । এছাড়া তিনি নতুন প্রজন্মের অভিনেতা-অভিনেত্রীদের সাথেও সমানতালে কাজ করেছেন । ঋতাভরী চক্রবর্তী(Ritabhori chakraborty) ,রুশা চট্টোপাধ্যায়(Rusha chattopadhyay) সাথে একসাথে তিনি স্ক্রিন শেয়ার করেছেন । তাবড় তাবড় পরিচালকদের সাথে টেলিফিল্ম করেছেন তিনি। একজন অত্যন্ত দক্ষ এবং জনপ্রিয় অভিনেতা ছিলেন তিনি।

নাটকের হাত ধরেই তিনি প্রথম মঞ্চে আসেন। চেতলার বাসিন্দা ছিলেন তিনি। শ্রীমতি ভয়ঙ্কর, ছদ্দবেশী ,দম্পতি, বৈশাখী ঝড় , ইত্যাদি বিভিন্ন নাটকে তিনি অভিনয় করেন। ‘ফেরারি মন’, থিয়েটারের মঞ্চ আলো করেছিল তাঁর অভিনয়। নাটক দিয়ে তাঁর হাতে খড়ি হলেও টেলিভিশনে তাঁকে প্রথম জনপ্রিয়তার শিখরে তুলে দেয়। মীনাক্ষী গোস্বামীর(Minakhi Ghoswami) ‘কলকাতার কাছেই’, ধারাবাহিকে তিনি সকলের নজরে আসেন। ‘জন্মভূমি’ সিরিয়াল এর জনপ্রিয় হবার পর ঘরে-ঘরে তিনি চেনামুখ হয়ে ওঠেন । নরনারায়ন হয়ে ওঠে আমাদের সকলের অত্যন্ত কাছের একটি চরিত্র । ব্যাংকে চাকরির দায়িত্ব সামলেছেন ই সমানতালে অভিনয় করেছিলেন। ‘রাজেশ্বরী’ সিরিয়াল যারা দেখেছিলেন তাঁরা এখনো ভুলতে পারেননি মথুরবাবু অর্থাৎ গৌতম দে(Gautam Dey)কে । ‘প্রতিবিম্ব’, ‘লাবণ্যের সংসারে’ও তিনি অভিনয় দিয়ে গেছেন । পরবর্তীকালে ‘তিথির অথিতি’, ‘ধেততেরিকি’, ‘কুসুমদোলা’, ‘খুঁজে বেড়ায় কাছের মানুষ’ ইত্যাদি বিভিন্ন সিরিয়ালে অভিনয় করেছেন।

হঠাৎ করে মাঝ বয়সে এসে তিনি ক্যান্সার রোগে আক্রান্ত হন । এই মারন রোগে তাঁকে কেড়ে নেয় তাঁর সুদর্শন সৌম্য চেহারা । কিন্তু এই মারণ রোগ সঙ্গে নিয়ে সদাহাস্য মুখে তিনি অভিনয় করে গেছেন ‘হৃদয় হরন বিএ পাস’, ‘করুণাময়ী রানী রাসমণি ‘ ইত্যাদি সিরিয়ালে। তিনি ৬৫ বছর বয়সে এই মারণ রোগের কাছে হার মেনে তিনি পরলোকগমন করেন। ২০১৮ সালে ২৪ ডিসেম্বর তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। তাঁর এক কন্যা সন্তান এবং স্ত্রী রয়েছে । বেশ কয়েক বছর আগেই তাঁর মেয়ের বিবাহ হয়ে যায়। নানান রকম রিয়েলিটি শোতে বিভিন্ন সময়ে সস্ত্রীক তিনি এসেছিলেন । রোগ, শোক ,জরা ,বাধ্যক্য, মৃত্যু সবকিছুই থাকবে। কিন্তু রয়ে যাবে একজন শিল্পীর কাজ। বেশ কয়েক বছর আগে আমাদের সকলকে ছেড়ে চলে গেলেও অসম্ভব প্রাণবন্ত এই অভিনেতাকে আজও ভুলতে পারেনি দর্শককুল।

Related Articles