বিনোদন

বারবার ভাইজানের সম্পর্ক ভাঙার কারণ জানিয়ে দিলেন প্রাক্তন প্রেমিকা!

বলিউড ইন্ডাস্ট্রি প্রথম সারির ব্লকবাস্টার হিট অভিনেতাদের মধ্যে অন্যতম সালমান খান। ইন্ডাস্ট্রির মোস্ট এলিজেবল ব্যাচেলর হিসেবে তার নাম সবার উপরে রয়েছে তা মানেন সকলেই। এখনো পর্যন্ত বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ না হলেও তার প্রেমিকার তালিকা খুব একটা ছোট নয়। বারবার সম্পর্কে জড়িয়েও তা টেকেনি শেষপর্যন্ত। উল্লেখ্য, তার প্রেমিকার তালিকাও বেশ বড় এবং উল্লেখ করার মতো। সেই তালিকায় রয়েছেন একাধিক বলি ডিবা। সম্পর্ক ভেঙে গেলেও তাদের অনেকের সাথেই এখনো বন্ধুত্ব রেখে চলেছেন ভাইজান। তার প্রেমিকাদের মধ্যে কয়েকজনের নাম উল্লেখ না করলেই নয়। ঐশ্বর্য রাই বচ্চন, সোমি আলি, সঙ্গীতা বিজলানি, ক্যাটরিনা কাইফ এবং বর্তমানের ইউলিয়া।

তবে সালমান খানকে সামনে পেলেই বেশিরভাগ মানুষের প্রথম প্রশ্ন তিনি বিয়ে কবে করবেন? তবে তার উত্তর পাওয়া যায়নি এখনো। আদেও পাওয়া যাবে কিনা তা নিয়েও রয়েছে সন্দেহ। বারবার কেন ভাইজান সম্পর্কের ক্ষেত্রে ভাঙনের মুখোমুখি হন? এই প্রশ্নের উত্তর জানতে আগ্রহী সকলেই। তবে অধিকাংশের মতে, এই প্রশ্নের উত্তর বেশি ভালোভাবে দিতে পারবেন স্বয়ং অভিনেতাই। তবে ক্যামেরার সামনে বা মিডিয়ার সামনে এই নিয়ে মুখ খুলতে নারাজ অভিনেতা। সম্প্রতি তারই প্রাক্তন প্রেমিকা সোমি আলি এই প্রসঙ্গে মুখ খুলেছেন এক সাক্ষাৎকারে।

সাক্ষাৎকারে তিনি জানিয়েছেন, তিনি আমেরিকা থেকে ভারতে শুধুমাত্র এসেছিলেন সালমান খানকে বিয়ে করার জন্য। তবে শেষপর্যন্ত ভাইজানের সাথে সম্পর্ক ভেঙে যাওয়ায় তিনি আবারও আমেরিকায় ফিরে গিয়েছিলেন। তার কথা থেকেই জানা গিয়েছে, সালমান অভিনীত ‘ম্যায়নে পেয়ার কিয়া’ ছবি দেখেই অভিনেতার প্রেমে পড়ে গিয়েছিলেন তিনি। আমেরিকা থেকে ভারতে আসার সময় মাকে বলে এসেছিলেন, তিনি মুম্বাই যাচ্ছেন সালমান খানকে বিয়ে করার জন্য। এমনকি তার পাশেও থাকতো সালমান খানের ছবি।

নেপালে তারা দুজন একবার মুখোমুখি বসে কথা বলেছিলেন। সোমি আলি সরাসরি অভিনেতাকে জানিয়েছিলেন তিনি তাকে বিয়ে করতে চান। এর উত্তরে অভিনেতা বলেছিলেন তার প্রেমিকা রয়েছে। তবে তাতে তার কিছু যায় আসে না সে কথা তিনি জানিয়ে দিয়েছিলেন। এরও এক বছর পরে তারা সম্পর্কে জড়ান। তখনই অভিনেতা তাকে বলেছিলেন তিনি তাকে ভালবাসেন। তবে তাদের সম্পর্ক খুব একটা সুখের ছিল না। একে অপরের সাথে সম্পর্ক থাকাকালীন কেউই কারও সাথে মানিয়ে উঠতে পারছিলেন না বলেই জানিয়েছিলেন সোমি আলি। এরপরেই তারা সিদ্ধান্ত নেন সম্পর্ক ভেঙে দেওয়ার। তারপরে আবারো তিনি ফিরে যান আমেরিকাতে তার পরিবারের কাছে।

Related Articles